আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস স্মরণে ‘সম্প্রীতি উৎসব-২০২০’

সম্প্রতি ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ স্মরণে শিলিগুড়ির সুস্থ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক চেতনাসম্পন্ন সংগঠন ‘সম্প্রীতি’ সমগ্র ফেব্রুয়ারি মাস জুড়ে পরম আন্তরিকতায় উদযাপন করলো ‘সম্প্রীতি উৎসব ২০২০’। ‘সম্প্রীতি’র সভাপতি শ্রী জয়ন্ত করের ভাবনায় এবং সদস্যদের আন্তরিক নিষ্ঠায় মহাসমারোহে পালিত হল ‘সম্প্রীতি উৎসব’। সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা, স্মরণিকা প্রকাশ অনুষ্ঠান, পুরষ্কার বিতরণী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং ভাষা দিবসকে সম্মান জানাতে বলিষ্ঠ পদযাত্রা, ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ ইত্যাদি নানা বৈচিত্র্যময়তায় সেজে উঠেছিল এই উৎসব। গত ৯ই ও ১৬ই ফ্রেব্রুয়ারি আবৃত্তি, সংগীত ও নৃত্য প্রতিযোগিতার মধ্যে দিয়ে যাত্রা শুরু হয়। বিভিন্ন বিভাগে প্রায় চারশো প্রতিযোগী অংশ নেয়। গত ২০শে ফ্রেব্রুয়ারি, ২০২০ (বৃহস্পতিবার) স্থানীয় মৈনাক টুরিষ্ট লজের প্রেক্ষাগৃহে ‘একুশ’ নামাঙ্কিত স্মরণিকা প্রকাশ অনুষ্ঠান ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ঐদিনই সফল প্রতিযোগিদের পুরস্কৃত করা হয়। উক্ত দিনে সম্মানীয় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মাননীয় পর্যটন মন্ত্রী শ্রী গৌতম দেব। প্রদীপ প্রজ্বলনের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানটির তিনি অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন। এরপর শ্রী গৌতম দেব ‘একুশ’ পত্রিকার মোড়ক উন্মোচন করেন। এই অমোঘ মুহূর্তের সাক্ষী থাকেন শহরের বিশিষ্ট আমন্ত্রিত ব্যক্তিবর্গ, সম্মানীয় বিচারকমণ্ডলী, সাধারণ দর্শক ও শ্রোতাবন্ধুরা এবং ‘সম্প্রীতি’র সদস্যবৃন্দ। ‘সম্প্রীতি’ এই নামের প্রতি সম্মান জানাতে ‘হিন্দু-মুসলমান’ সম্প্রীতির উপর শ্রুতিনাটক পরিবেশন করে ‘সম্প্রীতি’র দুই সদস্যা শ্রীমতি কৃষ্ণা কর ও শ্রীমতি পৃথা সেন। অপর সদস্যা জয়িতা সেন একুশ স্মরণে একটি কথিকা পাঠ করেন। সংগীত পরিবেশন করেন বিশিষ্ঠ সংগীত শিল্পী শ্রীমতি বর্ণালী বসু। তাঁর সুরের মূর্ছনায় প্লাবিত হয় প্রেক্ষাগৃহ। আমন্ত্রিত শিল্পী তবলাবাদক শ্রী সুবীর অধিকারীর একক পরিবেশন মুগ্ধ করে শ্রোতাদের। গত ২১ ফ্রেব্রুয়ারির পবিত্র সকালে মাতৃভাষাকে সম্মান জানাতে ও ভাষা শহিদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধায় পদযাত্রায় শামিল হয় ‘সম্প্রীতি’। পদযাত্রা শেষ হয় স্থানীয় বাঘাযতীন পার্কে। সেখানে শহিদবেদীতে পুষ্পার্ঘ্য প্রদান করেন সভাপতি জয়ন্ত কর, সম্পাদক সুপ্রকাশ রায় সহ পরিবারের সকলে। গত ২৩শে ফেব্রুয়ারি শ্রুতিনাটক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। বারোটি দল এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। প্রতিযোগিতার শেষে পুরস্কার প্রদানের মধ্যে দিয়ে ‘সম্প্রীতি উৎসব ২০২০’র সমাপ্তি ঘোষিত হয়। বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতিকে নতুন প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিতে ‘সম্প্রীতি’ আগামীতেও নানা অভিনব কর্মসূচী পালনে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ ও বদ্ধপরিকর।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*